শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
উখিয়ার নাউট্টা সেলিমের নকল মসলার ব্যবসায় ইয়াবার গন্ধ ‘উখিয়া নাগরিক পরিষদ’ নামের সামাজিক সংগঠনের আত্মপ্রকাশ উখিয়ায় মাঠে চষে বেড়াচ্ছেন যেসব প্রার্থীরা : উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ডাম্পারের বেপরোয়া গতির মূল হাতিয়ার মাসোহারা’ উখিয়ায় সড়ক নির্মাণে দুর্নীতি ও অনিয়মের শেষ নেই বন কর্মকর্তা সাজ্জাদের মৃত্যুর ঘটনায় যাদের বিরুদ্ধে মামলা বন কর্মকর্তা সাজ্জাদের মৃত্যুতে উখিয়া অনলাইন প্রেসক্লাবের শোক উখিয়ায় এপিবিএন পুলিশের গাড়ির ধাক্কায় শিশু নিহত: মায়ের আহাজারিতে ভারী হাসপাতাল প্রাঙ্গণ! পাহাড় রক্ষা করতে গিয়ে মাটিখেকোর ঘাতক ডাম্পার কেড়ে নিলো বিট কর্মকর্তা সাজ্জাদুজামানের প্রাণ.! উখিয়ার চিহ্নিত মাদক কারবারি জয়নাল বেপরোয়া

অনিয়ম তদন্তে ধীরতা; বহাল তবিয়ত শিক্ষা অফিসার গুলশান

নিজস্ব প্রতিবেদক: / ১২৪ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ৩ এপ্রিল, ২০২৩
শিক্ষা অফিসার উখিয়া

উখিয়ায় উপজেলা শিক্ষা অফিসার গুলশান আক্তারের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের তদন্ত সম্পন্ন হওয়ার ১২দিন অতিবাহিত হলেও প্রস্তুত হয়নি তদন্ত প্রতিবেদন। যার ফলে বহালতবিয়ত অনিয়ম কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন অভিযুক্ত এই শিক্ষা অফিসার।

এদিকে তদন্ত কার্যক্রমের ধীরতা নিয়ে অভিযোগকারীদের কেউ কেউ সংশয় প্রকাশ করলেও অভিযোগকারী ও সাংবাদিক নেতা জসিম আজাদ তদন্ত শতভাগ সুষ্ঠু হবে বলে আশা করেছেন।

তিনি বলেন, তদন্ত কর্মকর্তা ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মনসুর আলী চৌধুরী ডিপার্টমেন্টের ভাবমূর্তি রক্ষার স্বার্থে নিশ্চয় নিরপেক্ষভাবে তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করবেন। তিনি এবিষয়ে আমাদের আশ্বস্তও করেছেন। তবে তদন্ত কার্যক্রমের ধীরতা কখনো শুভ লক্ষণ নয় সেদিকেও আমরা সর্তক দৃষ্টি রেখেছি।

তদন্ত কার্যক্রমের অগ্রগতি সম্পর্কে তদন্ত কর্মকর্তা ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মনসুর আলী চৌধুরী বলেন, তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করা হচ্ছে। এখনো চূড়ান্ত করতে পারিনি। দাপ্তরিক বিভিন্ন কাজের চাপে একটু সময় হচ্ছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে এই তদন্ত প্রতিবেদনের কাজ শেষ করবো।

উল্লেখ্য যে, গত ২২ মার্চ সকালে উখিয়া উপজেলা শিক্ষা অফিসে তদন্ত কর্মকর্তা ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মনসুর আলী চৌধুরী ও সহকারি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার পরিনয় চাকমা এ তদন্ত কার্যক্রম সম্পন্ন করেন। দীর্ঘ সাড়ে ৩ ঘন্টা ধরে এ তদন্ত কার্যক্রম চলছিল।

এর আগে উখিয়ায় উপজেলা শিক্ষা অফিসার গুলশান আক্তারের বিরুদ্ধে জৈষ্ঠতা লঙ্ঘন করে পদোন্নতি দেওয়া, বিধি লঙ্ঘন করে প্রেষণে পাঠোনো, স্বেচ্ছাচারীতা, অশালীন ব্যবহারসহ নানা অভিযোগে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর অভিযোগ করেছিলেন উপজেলা শিক্ষা অফিসারের অধীনস্থ কয়েকজন শিক্ষক ও সাংবাদিক জসিম আজাদ।

ওই অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি প্রাথমিক শিক্ষা চট্টগ্রাম বিভাগের বিভাগীয় উপ পরিচালক ড. মোঃ শফিকুল ইসলাম এই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলেন।

অবশ্য, প্রাথমিক শিক্ষা চট্টগ্রাম বিভাগের বিভাগীয় উপ পরিচালক ড. মোঃ শফিকুল ইসলামের প্রেরিত চিঠিতে পত্র প্রাপ্তির ১০ কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া নির্দেশনা ছিলো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর

এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: